আলোচিত খবর

জীবিত মা উদ্ধার, ‘সাজানো নাটক’ নিয়ে মুখ খুললেন মরিয়ম মান্নান

দীর্ঘ ২৯ দিন পর খুলনা নগরের দৌলতপুর থানার মহেশ্বরপাশায়

নিখোঁজ মরিয়ম মান্নানের মা রহিমা বেগমকে (৫৫) উদ্ধার করেছে

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গতকাল শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাত পৌনে ১১টার দিকে রহিমাকে ফরিদপুর থেকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। মাকে ফিরে পাওয়ায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন মেয়ে মরিয়ম মান্নান। আর বিষয়টি নিয়ে আজ রোববার দুপুরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন তিনি। এ ঘটনার পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ কয়েকটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন মরিয়ম মান্নান।যেখানে তিনি উচ্ছ্বাস প্রকাশের পাশাপাশি সরকারকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন যারা এতদিন তার পাশে থেকে সাহস

জুগিয়েছেন। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়াসহ পুলিশ ও দেশবাসীর মনে দেখা দিয়েছে ভিন্ন প্রশ্ন। বিষয়টিকে অনেকেই ‘সাজানো নাটক’ বলছেন। একই কথা বলছে পুলিশও। বিষয়টি নিয়ে শুরু হয়েছে তীব্র সমালোচনা। যদিও সেই সব সমালোচনাকে এখন আমলে নিচ্ছেন না আলোচিত এই মরিয়ম। আজ দুপুরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মায়ের মরদেহ পাওয়ার সেই দাবিরও ব্যাখা দিলেন তিনি। মরিয়ম জানান, ‘আপনাদের (সাংবাদিকরা) তো খুশি হওয়ার কথা যে আমাদের মায়ের লাশ পাওয়ার পরিবর্তে জীবিত পেয়েছি। এখন কারা সমালোচনা করছে তা দেখার বিষয় না। আমি আমার মাকে জীবিত পেয়েছি, মাকে দেখেছি এটাই বড় কথা।’ ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলায় লাশ পাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মায়ের নিখোঁজ হওয়ার পর আমি ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় নিখোঁজের পোস্টার টানিয়েছিলাম। আমার বন্ধুরা যেখানে যেখানে আছে আমি তাদের কাছে মেইল করেছি পোস্টারগুলো, বলেছি তোমরা তোমাদের এলাকায় লাগাবা; যদি কারো নজরে পড়ে। তারা নিজেদের পকেটের টাকা দিয়েই পোস্টার টানিয়েছে। আমার মা যখন নিখোঁজ হন তখন আমিও তো খুঁজেছি। শোনা যাচ্ছিল তিনি আত্মগোপন করেছেন। এরপর ময়মনসিংহ থেকে একটি ম্যাসেজ পাই, যেখানে লেখা থাকে অজ্ঞাতনামা এক নারীর লাশ পাওয়া গেছে এবং ফুলপুর থানার ওসির নম্বর দেয়া ছিল।’ ‘এখন আমি আমার মাকে ২৭ দিন ধরে পাচ্ছি না। ফুলপুরে একটা লাশ পাওয়া গেছে, তাকে আমার মা ভাবা কি অন্যায়? আপনিই বলেন সেটা কি অন্যায়? আপনি যদি একটা লাশ পান, যদি তার কাছে যান সেটা তো অন্যায় না। আমি তো মায়ের খোঁজে গিয়েছি। আমি তো কোনো আসামির রিমান্ড বা ফাঁসি দাবি করিনি। আমি তো শুধু আমার মায়ের সন্ধান চেয়েছি।’ এমন মন্তব্যে তার কিছু যায় আসে না বলেও জানান মরিয়ম । তিনি বলেন, আমি আমার মাকে পেয়েছি। আমার কলিজা ঠাণ্ডা হয়ে গেছে। এখন সে কোথায় গিয়েছিল, কেন গিয়েছিল তার তদন্ত করবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সে বিষয়টি আমার দেখার কথা না। দেশে আইন আছে, প্রশাসন আছে। ফেসবুকে কে কী লিখল তা নিয়ে আমার কোনো চিন্তা নেই। কেউ একজন দাবি করল আমি ফাঁসানোর জন্য সব করছি, সেটা সত্যি নাও হতে পারে। তার জন্য প্রশাসন আছে।’

Related Articles

Back to top button