আলোচিত খবর

টার্গেট উঠতি বয়সী তরুণী, ভাঙা প্রেম জোড়া লাগাতে নিতেন ‘নগ্ন ছবি’

বাঁকা পথে লাখপতি হতে তিন বছরের প্রশিক্ষণ নেন জাহাঙ্গীর

হোসেন। প্রশিক্ষণ শেষে হয়ে যান জিনের বাদশা। শুরু করেন কাজও।

তবে মূল টার্গেট উঠতি বয়সী তরুণীরা। সংসার কিংবা প্রেমে ভাঙন ধরলে জোড়া লাগানোর নামে নিতেন ‘নগ্ন ছবি’। সম্পর্ক জোড়া লাগাতে না পারলেও হাতিয়ে নিতেন হাজারো টাকা। দীর্ঘদিন ধরে এভাবে প্রতারণা করলেও অবশেষে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছেন ২২ বছর বয়সী কথিত জিনের বাদশা জাহাঙ্গীর। মঙ্গলবার রাতে টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কাশিল ইউনিয়নের দাপনাজোর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। জাহাঙ্গীর কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার আমীর হোসেনের ছেলে। জানা গেছে,

বিয়ের পর সংসার ভেঙে যায় বাসাইলের এক মেয়ের। এরপর প্রেমে জড়ান তিনি। কিন্তু প্রেমটিও ভেঙে যাওয়ার পথে। এর মধ্যেই মেয়েটির ফেসবুক অ্যাকাউন্টে কবিরাজ বাড়ি নামের একটি আইডি আসে। সেখানে তিনি যোগাযোগ করেন। যোগাযোগ করতেই প্রেমিকের সঙ্গে সম্পর্ক ঠিক করে দেবেন বলে মেয়েটির কাছ থেকে পাঁচ হাজার টাকা নেন জাহাঙ্গীর। এরপর বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ৩০ হাজার টাকা নেন। একই সঙ্গে প্রেমিকের সঙ্গে সম্পর্ক টেকাতে হলে নগ্ন ছবি লাগবে বলেও জানান। সরল মনে জাহাঙ্গীরকে নগ্ন ছবি পাঠান মেয়েটি। পরে আরো টাকা চান কথিত এ জিনের বাদশা। না দিলে প্রেমিককে জিনে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেন। এছাড়া বিয়ে হলেও মেয়েটির কোনো সন্তান হবে না বলে জানান তিনি। এসব বলে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখাতে থাকেন। বিষয়টি বুঝতে পেরে বাসাইল থানায় অভিযোগ করেন মেয়েটি। পরে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে দাপনাজোর এলাকা থেকে জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বাসাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, জাহাঙ্গীর বিভিন্নভাবে কম বয়সী তরুণীদের প্রলোভন দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নিতেন। তিন বছর প্রশিক্ষণ নিয়ে প্রতারণার এ কাজ শুরু করেন তিনি। তার মূল টার্গেট উঠতি বয়সী তরুণীরা। শুধু একজন নয়, বিভিন্নভাবে আরো কয়েকজন মেয়ের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেন জাহাঙ্গীর।

Related Articles

Back to top button