Uncategorized

ছাত্রকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করলেন প্রধান শিক্ষক!

ক্লাস চলাকালে ‘ডিস্টার্ব’ করার অজুহাতে বগুড়া পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র সাকিবুর রহমান সাকিবকে পিটিয়ে

রক্তাক্ত করেছেন পুলিশ লাইন্স সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাক। বুধবার সকালে স্কুল চত্বরে এ ঘটনা ঘটে। এ

ঘটনায় ওই ছাত্রের বাবা প্রতিকার চেয়ে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে এর আগেও কয়েকজন শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ প্রসঙ্গে পুলিশ লাইন্স সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাক জানান, ক্লাস চলাকালে হাইস্কুলের শিক্ষার্থীরা দোলনার কাছে এসে দুষ্টমি করছিল। এতে ক্লাস নিতে ডিস্টার্ব হচ্ছিল। বার

বার নিষেধ করার পরও তারা সরে যায়নি। তাই তাদের সরিয়ে দিতে গিয়ে হাত লেগে দাঁত দিয়ে রক্ত বের হয়েছে। তিনি আরো বলেন, কোনো ছাত্রকে মারপিট করা হয়নি; ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। সাকিবের মা শহরের সুত্রাপুর এলাকার শহিদুল ইসলামের স্ত্রী তহুরা মার্জিয়া শারমিন জানান, প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাক অন্যায়ভাবে তার ছেলেকে পেছন থেকে কলার ধরে বেদম মারপিট করেছেন। নাক ফেঁটে অনেক রক্ত

ঝড়েছে; চোখে ঝাপসা দেখছে। তিনি তার ছেলের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত। তিনি প্রধান শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। পুলিশ সুপার ও স্কুলের সভাপতি সুদীপ কুমার চক্রবর্তী জানান, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, ছাত্রের অভিভাবক ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে বসা হবে। এতে প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে জেলা সরকারি প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে বলা হবে। বগুড়া পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র (শাখা: খ, রোল: ১১) সাকিবুর রহমান সাকিবের বাবা

শহিদুল ইসলাম পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, তার ছেলে বুধবার বেলা ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে স্কুলের পাশে দোলনার কাছে যায়। এ সময় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাক অকারণে পেছন থেকে আটক করে বেধড়ক মারপিট করেন। শার্টের টাই চেপে ধরায় গলায় ফাঁস লাগে। মারপিটে নাকে, দুই চোখে আঘাত করায় ছেলে চোখে ঝাপসা দেখছে। কিল-ঘুসিতে চশমার কাঁচ ভেঙে নাকে-মুখে লেগে রক্তক্ষরণ হয়। নাক ফেটে অনেক রক্ত বের হয়। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে কিল-ঘুসি মেরে রক্তাক্ত জখম করেন। পরে সহপাঠী ও স্কুলের শিক্ষকরা সাকিবকে উদ্ধার করে স্থানীয় ইবনে সিনা হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেন। শহিদুল ইসলাম আরও অভিযোগ

করেন, এর আগেও প্রধান শিক্ষক কয়েকজন ছাত্রকে অকারণে মারপিট করেছেন। অভিভাবকরা এর কোনো প্রতিকার পাননি। তিনি তার ছেলেকে মারপিটকারী শিক্ষক নামধারী আবদুর রাজ্জাকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন। বগুড়া পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহাদৎ আলম ঝুনু তার প্রতিষ্ঠানের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রকে মারপিটের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

Related Articles

Back to top button