আলোচিত খবর

হঠাৎ আকাশে কালো ধোঁয়ার কুণ্ডলী, আতঙ্কে পুরো গ্রাম

কাশে কালো ধোঁয়ার কুণ্ডলী আতঙ্কে পুরো গ্রাম। সবাই আগুনের

খোঁজে দিগ্বিদিক ছোটাছুটি। নেত্রকোনার দুর্গাপুরের সীমান্তবর্তী গ্রামে

খড়ের স্তুপে এমনি এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো গ্রামের হাজারো বাসিন্দার মাঝে। শুক্রবার বিকেলে উপজেলার সদর ইউপির চন্দ্রকোনা মায়ানগর গ্রামে হঠাৎ পরে স্থানীয় একটি বাড়িতে আগুন এর উপস্থিতি দেখতে পেয়ে যে যার মত আগুন নিয়ন্ত্রণে চেষ্টা চালায়। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে ছুটে যান উপজেলার দমকল কর্মীরা। দমকলকর্মী ও স্থানীয়দের দীর্ঘক্ষণের যৌথ প্রচেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে আনা হয় খড়ের আগুন। তবে কোনো হতাহতের ঘটনায় ঘটেনি বলে জানান দমকল বাহিনী। নেত্রকোনার দুর্গাপুরের সীমান্তবর্তী গ্রামে খড়ের স্তুপে এমনি এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো গ্রামের হাজারো বাসিন্দার মাঝে। নেত্রকোনার দুর্গাপুরের সীমান্তবর্তী গ্রামে খড়ের স্তুপে এমনি এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো গ্রামের হাজারো বাসিন্দার মাঝে। মায়ানগর গ্রামের বাসিন্দা লাল মাহমুদের বাড়ির

উঠান থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়। স্থানীয়রা জানান, অনেকেই মাঠে চাষের জমিতে কাজে ব্যস্ত ছিলেন। কেউ আবার খেলার মাঠে খেলাধুলা মুহূর্তে হঠাৎ গ্রামের পুরো আকাশ কালো ধোঁয়ায় দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। স্থানীয়রা কোনো কিছু বোঝার আগেই দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করে আগুনের উৎপত্তিস্থল খুঁজে বের করার চেষ্টা করেন। এরই মাঝে গ্রামের এক পাশ থেকে আগুন আগুন চিৎকারে ছুটে যান সবাই। লাল মাহমুদের বাড়ি উঠানে স্তুপ করে রাখা খড়ের গাদায় আগুন দেখতে পান। তাৎক্ষণিক যে যার মতো বালতি, বাতিলসহ পাশের পুকুর থেকে পানি নিয়ে আগুন নেভাবার চেষ্টা করেন। পরে দমকলকর্মী একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে ছুটে এসে আধ ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। নেত্রকোনার দুর্গাপুরের সীমান্তবর্তী গ্রামে খড়ের স্তুপে এমনি এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো গ্রামের হাজারো বাসিন্দার মাঝে। নেত্রকোনার দুর্গাপুরের সীমান্তবর্তী গ্রামে খড়ের স্তুপে এমনি এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো গ্রামের হাজারো বাসিন্দার মাঝে। এদিকে দমকলকর্মীরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছেন বিড়ি-সিগারেটের অবশিষ্ট অংশ থেকেই আগুনের সূত্রপাত হতে পারে। এই নিয়ে গেল এক মাসে এরকম ছোট-বড় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে প্রায় পাঁচ টিরও বেশি। সবকটিতেই দমকলকর্মীরা ছুটে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে হয়। তবে সচেতন মহলেন নাগরিকরা মনে করছেন, গ্রামবাসীর অবহেলার কারণেই পরপর এমন দুর্ঘটনা ঘটছে। যত্রতত্র খড়ের স্তুপ করে রাখা আর ধূমপানের পর বিড়ি-সিগারেটের অবশিষ্ট অংশ যেখানে সেখানে ফেলে দেয়ার ফলেই এমন অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে হরহামেশা। এর ফলে বড় ধরনের প্রাণনাশের ঘটনা থেকেও অল্পের জন্য বেঁচে যাচ্ছেন অনেকে। এসব ঘটনা বন্ধে সবাইকে সচেতন হয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। নেত্রকোনার দুর্গাপুরের সীমান্তবর্তী গ্রামে খড়ের স্তুপে এমনি এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো গ্রামের হাজারো বাসিন্দার মাঝে। নেত্রকোনার দুর্গাপুরের সীমান্তবর্তী গ্রামে খড়ের স্তুপে এমনি এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো গ্রামের হাজারো বাসিন্দার মাঝে। দুর্গাপুর উপজেলা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, আমরা খবর পাওয়ার পরপরই তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করি। অনেকগুলো খড় একত্রে স্তুপ করে রাখার ফলে একটির পর একটি সহজেই জ্বলে উঠেছে। মূলত বিড়ি-সিগারেটের অবশিষ্ট অংশ থেকেই এই আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি।

Related Articles

Back to top button