আলোচিত খবর

‘বিরুশকা’ কন্যার ছবি প্রকাশকে ‘খুব খারাপ কাজ’ বলছেন ভক্তরা

২০১৭ সালের ১১ ডিসেম্বর ইতালির ফ্লোরেন্সের অভিজাত রিসোর্ট

‘বুর্গ ফিনিচ্চিয়াতো’তে সাতপাকে বাঁধা পড়েন বিরাট কোহলি-আনুশকা শর্মা।

গত বছরের ১১ জানুয়ারি তাদের ঘর আলো করে আসে মেয়ে ভামিকা।

তবে সন্তানকে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে দূরে রাখবেন, অন্তঃসত্ত্বা অবস্থাতেই এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছিলেন তারা। তারপর থেকেই মেয়েকে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে দূরে রেখেছেন এই দম্পতি। এদিকে (২৩ জানুয়ারি) কেপ টাউনে ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা এক দিনের ম্যাচ চলাকালীন মাঠে মেয়েকে নিয়ে হাজির ছিলেন আনুশকা। বিরাটও এদিন দলের বিপর্যয়ের মুখে দারুণ এক হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন। আর তখনই ভামিকার মুখে ক্যামেরা ধরে ব্রডকাস্টাররা। যার কারণে ক্ষুব্ধ ‘বিরুশকা’ ভক্তরা, এর মাধ্যমে ব্যক্তিগত গোপনীয়তাকে লঙ্ঘন করা হয়েছে বলে দাবি তাদের। আগেও বেশ কয়েকবার মেয়েকে নিয়ে মাঠে হাজির হয়েছিলেন আনুশকা। তবে ভামিকার মুখ বরাবরই ঢেকে ছবি

প্রকাশ্যে এনেছেন ভক্তরা। এদিন বিরাট অর্ধশত রানের গণ্ডি পার করলেই মেয়েকে কোলে নিয়ে গ্যালারিতে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে দেখা যায় আনুশকাকে। ২২ গজ থেকেই মেয়ে ও স্ত্রীর উদ্দেশে ভালোবাসা জানান বিরাট, এমনকি এই হাফ সেঞ্চুরি ভামিকাকেই উত্সর্গ করেন সদস্য সাবেক হওয়া ভারত অধিনায়ক। ‘একদম বিরাটের মতো দেখতে ভামিকাকে’, সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি ও ভিডিয়ো ভাইরাল হতে সবার মুখেই এককথা। স্টেডিয়ামে যেভাবে মায়ের কোলে ভামিকার দেখা মিলল সাদা-গোলাপি ফ্রকে, তাতে অনেকে এমনটাও ভাবতে শুরু করেন এবার বোধহয় মেয়ের মুখ না দেখানোর পণ ভেঙে ফেলেছেন বিরুষ্কা। তবে সোমবার বেলা গড়াতেই আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দিয়ে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করলেন বিরাট-অনুষ্কা। ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে একই বিবৃতি ভাগ করে নিয়েছেন বিরাট-অনুষ্কা। তাঁরা বলেন, ‘আমরা বুঝতে পেরেছি আমাদের মেয়ের ছবি গতকাল স্টেডিয়ামে বন্দি হয়েছে এবং সেটা ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়েছে। আমরা সবাইকে বলতে চাই আমরা হতভম্ব এবং সত্যি বুঝতে পারিনি ক্যামেরা আমাদের দিকে তাক করা ছিল। আমরা অবস্থান একই রয়েছে, এবং একই অনুরোধ আমরা জানাব। আমরা সত্যিই চাই ভামিকার ছবি তোলা না হোক বা সেটি প্রকাশ্যে না আনা হোক একই কারণের জন্য যা আমরা আগেই বলেছি’। এমন কাণ্ডে হতবাক এবং একসঙ্গে ক্ষুব্ধ ‘বিরুশকা’ ভক্তরা। নেটিজেনদের একটা বড় অংশের দাবি, বিরাট-আনুশকার সিদ্ধান্তকে সম্মান জানানো উচিত ছিল তাদের। ম্যাচের ওই অংশের ভিডিও ক্লিপিংস প্রচুর পরিমাণে শেয়ারও হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেটিও অনুচিত কাজ বলেই দাবি করছেন ওই নেটিজেনদের। যে সব অ্যাকাউন্ট থেকে ভামিকার ওই ভিডিও শেয়ার করা হচ্ছে তাদের ওই ভিডিও মুছে ফেলার আবেদনও জানাচ্ছেন দুই তারকার ভক্তরা।

Related Articles

Back to top button