Uncategorized

বাবাকে জিতাতে নির্বাচনি প্রচারণায় চিত্রনায়ক সাইমন সাদিক

চলতি প্রজন্মের নায়ক সাইমন। শুটিং নিয়েই থাকে তার ব্যস্ততা।

তবে এবার তাকে দেখা গেল ভোটের মাঠে! তবে নিজের জন্য নয়,

বাবার পক্ষে ভোট চাইতে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এই নায়ক। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বাবাকে জেতাতে প্রচারণায় নেমেছেন চিত্রনায়ক সাইমন সাদিক। কখনও মাইক্রোফোন হাতে পথ সভায় বক্তৃতা করছেন, কখনও আবার বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটারদের কাছে ভোট চাইছেন। সাইমনের বাবা মো. সাদেকুর রহমান এবার কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী। তিনি এই ইউনিয়নের সাবক চেয়ারম্যান ছিলেন। বাবাকে বিজয়ী করার লক্ষ্যেই দিন-রাত পরিশ্রম করছেন সাইমন। বাবার নির্বাচনি প্রচারের জন্য সাইমন নিজে ‘বায়া দে’ শিরোনামে একটি গান লিখেছেন। গানে কণ্ঠ

দিয়েছেন এবং মিউজিক করেছেন তার বন্ধু শাহরিয়ার রাফাত। নিজের ইউটিউব চ্যানেলে গানের সঙ্গে বাবাকে নিয়ে প্রচারণার একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন সাইমন। আগামী ২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপে মহিনন্দ ইউপির নির্বাচন হবে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন ছাদেকুর রহমান। দীর্ঘ বিরতির পর আবারও রাজনীতিতে ফিরেছেন তিনি। সাইমন সাদিক জানান, ‌‘১৯৯২ সাল। আমি তখন ছোট। আব্বু এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন। তখন থেকেই বিষয়টি খুব উপভোগ করি। আমার এলাকার মানুষ অত্যন্ত সহজ-সরল। তারা এটাও বোঝেন, এলাকার উন্নয়ন আসলে কার মাধ্যমে হবে। ইনশাল্লাহ, আমার বাবা জয়ী হবেন।’ সাইমন সবার কাছে দোয়া চেয়ে বলেন, আব্বু এবার নৌকার মাঝি। কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি। আরও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি মনোনয়ন বোর্ডের সকল সদস্যের প্রতি। চিত্রনায়ক হিসেবে নির্বাচনি প্রচারণার অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি আসলে কর্মক্ষেত্রেও নিজেকে নায়ক মনে করে চলি না। আর আমার গ্রামে বা ইউনিয়নে তো নিজেকে নায়ক ভাবার প্রশ্নই ওঠে না। জায়গাটা আমার, এই আলো-বাতাসেই আমি বড় হয়েছি। এখানে গ্রামের ছেলের মতোই সবার সঙ্গে চলাফেরা করি। তারপরও যেহেতু আমি অভিনেতা, সে কারণে সবার একটা অন্যরকম ভালোবাসা কাজ করে। আমি ভোট চাইতে যাচ্ছি, অনেকে আমার সঙ্গে সেলফি তুলছেন। এটা অন্যরকম অনুভূতি।’ এই ধাপে কিশোরগঞ্জ জেলার ৩ উপজেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন, নিকলী উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন এবং কুলিয়ারচর উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

Related Articles

Back to top button